ডেইরি ও পোলট্রি ফিডের জন্য আমদানি করা সয়াবিন বেনাপোল বন্দর দিয়ে রপ্তানি হচ্ছে ভারতে।

Spread the love

ইবাংলা প্রতিবেদক বেনাপোল:
ডেইরি ও পোলট্রি ফিডের জন্য আমদানি করা সয়াবিন বেনাপোল বন্দর দিয়ে রপ্তানি হচ্ছে ভারতে। বাংলাদেশ থেকে এসব সয়াবিন আমদানি করে পোল্ট্রি ফিড তৈরি করছেন ভারতীয় ব্যবসায়ীরা। ফলে ঝুঁকিতে আছে দেশের ডেইরি ও পোল্ট্রি শিল্প। সোমবার কাস্টস সূত্র জানিয়েছে, বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন পাঁচ-ছয় শ ট্রাক সয়াবিন ভারতে রপ্তানি হচ্ছে। এর আগে, গত ৫ সেপ্টেম্বর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের (উদ্ভিদ সঙ্গনিরোধ উইং) পরিচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেনের সই করা এক আদেশে বাংলাদেশ থেকে সয়াবিন রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জরি করা হয়। নিষেধাজ্ঞায় বলা হয়, প্রাণিসম্পদ সেক্টরে ডেইরি ও পোল্ট্রি ফিডে সয়াবিন একটি অন্যতম উপাদন। দেশীয় বাজারে বাৎসরিক সয়াবিনের প্রাপ্যতার ঘাটতি রয়েছে। দেশে ডেইরি ও পোল্ট্রি সেক্টরের চাহিদা মেটাতে বছরে প্রায় ১৫ লাখ মেট্রিক টন সয়াবিন প্রয়োজন। যার বেশিরভাগই আমদানি করতে হয়। সয়াবিন রফতানি করলে দেশে ডেইরি ও পোল্ট্রি শিল্পে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে। বাড়বে পোট্রি ফিডের দাম। নিষেধাজ্ঞা জারির পরই সব ধরনের সয়াবিন রপ্তানি বন্ধ করে দেয় বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এর ফলে বন্দর এলাকায় প্রায় দুই কিলোমিটার জুড়ে সড়কের ওপর সৃষ্টি হয় যানজট। গত ৯ সেপ্টেম্বর মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেনের সই করা অন্য এক আদেশে সয়াবিন রপ্তানির ওপর নিষধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়। নিষেধাজ্ঞা জারির পর বিষয়টি নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এ বিষেয়ে আমদানিকারক ব্যবসায়ী অব্দুল লতিফ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বিদেশ থেকে আমদানি করা সয়াবিন দেশের চাহিদা না মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করায় ডেইরি ও পোল্ট্রি শিল্প মারাত্মক ঝুঁকির মুখে পড়েছে। বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন কয়েক শ ট্রাক সয়াবিন ভারতে রপ্তানি হচ্ছে। দেশের ডেইরি ও পোল্ট্রি শিল্পকে বাঁচাতে এই মুহূর্তে সয়াবিন রপ্তানি বন্ধ করা জরুরি।’ পোলিট্র ফিড আমদানিকারক খুরশিদ জাহান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘সয়াবিন রপ্তানির ফলে দেশীয় ডেইরি ও পোল্ট্রি শিল্প ঝুঁকিতে পড়বে। দেশীয় পোল্ট্রি ফিডের মূল্য বেড়ে যাবে। আমরা সয়াবিন রপ্তানি বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি।’

     More News Of This Category

ফেসবুক