ভোট না দিলেও নৌকার প্রার্থী চেয়ারম্যান হবে’ – গফরগাঁও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আরঙ্গ হেলাল।

Spread the love

গফরগাঁও উপজেলা প্রতিনিধিঃ ভোট না দিলেও নৌকার প্রার্থী চেয়ারম্যান হবেনই বলে জানিয়ে দিয়েছেন ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আরঙ্গ হেলাল। উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের সনি এলাকায় গত শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে নির্বাচনী পথসভায় এ কথা বলেন তিনি।
হেলাল বলেন, ‘রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকার প্রার্থী সাইফুল আলমের বিরুদ্ধে কেউ যাবেন না। সবাই নৌকায় ভোট দেবেন। আর যদি ভোট না দেন, তবু জয় নিশ্চিত। আমাদের অন্য পথে যেতে বাধ্য করবেন না। ভোটের দিন সকালেই তিনি চেয়ারম্যান হবেন। অতএব নিজের ভোট বিফলে ফেলবেন না, ভোট না দিলেও নৌকার প্রার্থী চেয়ারম্যান হবেনই।’
তিনি আরও বলেন, ‘নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী মইনুল হক সরকারের চশমা প্রতীকে ভোট দেবেন না। যদি দেন তাহলে আপনাদের মন খারাপ হবে। কারণ তাকে ভোট দিলেও ফেল, না দিলেও ফেল করবেন। মনে করেন বিদ্রোহী প্রার্থী পাস করেছেন, তবু সড়কে এক কোদাল মাটি ফেলেও উন্নয়ন করতে পারবেন না। কারণ তাকে সে ক্ষমতাই দেয়া হবে না। আর যদি নৌকার প্রার্থী চেয়ারম্যান হন, তাহলে এমপির মাধ্যমে উপজেলা চেয়ারম্যান কাজ পাবেন, এরপর ভাইস চেয়ারম্যানের পরে পাবেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান। এভাবে উন্নয়ন ঘটবে।’
বিগত নির্বাচনের কথা স্মরণ করিয়ে হেলাল বলেন, ‘আগের নির্বাচনেও বাক্স ভরে অন্য প্রতীকে ভোট দিয়েছিলেন। এরপর কী হলো? নৌকা পাস করল! এ জন্য বলি, আপনারা আহাম্মক না, ভোটটা বিফলে ফালায়েন না।’
তিনি বলেন, ‘৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর মইনুলের পায়ের নিচে মাটি থাকবে না। তাকে পাইলে চশমা-টশমা ভাইঙ্গা দিয়াম। আপনাদের বলে দিলাম, নির্বাচন গতবারের মতোই হইব। আমাদের সাইফুল আলমকে পাস করাতে হবেই।’
এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হক, মতিউর রহমান, রুহুল আমিন ফরাজী।
এমন বক্তব্যের বিষয়ে জানতে মুঠোফোনে কথা হয় আরঙ্গ হেলালের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘জোর করে পাস করানোর বক্তব্য আমি দিইনি। সবার কাছে নৌকার পক্ষে ভোট চেয়েছি।’
এ বিষয়ে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি শহীদুল ইসলাম দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে জনগণের কাছে ভোট চাইতে হবে। জোর করে ভোট নেয়ার কথা বলে থাকলে এটি অপ্রত্যাশিত। এমন বক্তব্য তুলে নেয়া প্রয়োজন। জোর করে ভোট নেয়ার প্রয়োজন নেই। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের কথা চিন্তা করেই নৌকায় ভোট দেবে জনগণ।’
পঞ্চম ধাপে ৫ জানুয়ারি রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদে ভোট।

     More News Of This Category

ফেসবুক