নৌকাবিরোধী এমপি-মন্ত্রীদের তালিকা হচ্ছে: নাছিম

Spread the love

ইবাংলা প্রতিবেদকঃ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। সাবেক সংসদ সদস্য। আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতিও। ইবাংলার সঙ্গে আলাপে তিনি চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দলে যে বিতর্ক হচ্ছে, তা নিয়ে কথা বলেছেন। কথা বলেছেন রাষ্ট্রপতির সংলাপের ব্যাপারে আওয়ামী লীগের অবস্থান প্রসঙ্গেও।

প্রশ্ন: এবার যে কয়েকটি ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হয়েছে, তাতে দেখা গেছে, অনেক জায়গায় আওয়ামী লীগের ফল বিপর্যয় হয়েছে। বিদ্রোহীরা নৌকার জয় কেড়ে নিয়েছে। আপনার মন্তব্য?
বাহাউদ্দিন নাছিম: যতগুলো ধাপে নির্বাচন হয়েছে, তাতে মাঠে নির্বাচন করছে আওয়ামী লীগ। বিদ্রোহী হয়ে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছে আওয়ামী লীগেরই স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। আওয়ামী লীগ যেহেতু শৃঙ্খলার ভেতর দিয়ে দলকে পরিচালিত করে, সে জন্য যারাই দলের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করছে, তাদের বহিষ্কার করা হচ্ছে, শোকজ করা হচ্ছে। প্রয়োজনে দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হচ্ছে, বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। যেহেতু মাঠে অন্য দল নেই, আওয়ামী লীগই আছে, এ কারণে বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা বেড়েছে। এটাকে ইতিবাচক দিক হিসেবে আমরা নিচ্ছি না।
আমরা অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই। জনগণ ভোট কেন্দ্রে আসুক, জনগণ যাতে ভোট দিতে পারে, সেই পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন কাজ করছে, আমরাও কাজ করছি। একটি অর্থবহ নির্বাচন হচ্ছে এটা হলো গুরুত্বপূর্ণ। এখন পর্যন্ত যতটুকু তথ্য উপাত্ত আছে, তাতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরাই মেজরিটি আসনে বিজয়ী হয়েছে। কারণ যারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছে, তারাও আওয়ামী লীগেরই প্রার্থী। নৌকামার্কা ও স্বতন্ত্র এক সঙ্গে যোগ করলে তার ফলাফল কিন্তু আওয়ামী লীগই হবে।
মাঠে তো আওয়ামী লীগের প্রার্থীরাই রয়েছে। আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কার বাইরে যারা আছে, তারাও তো আওয়ামী লীগেরই। তাহলে এখানে বিপর্যয়টা কোথায়? আমরা মনে করি, এখানে বিপর্যয়টা হলো যারা নির্বাচন করল না, কিংবা দলীয় পরিচয় গোপন করে যারা নির্বাচন করল, সেই বিএনপির। তাদের প্রার্থীরা জনগণের কাছে জায়গা করতে পারেনি বলে তারা নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারেনি। দলীয় পরিচয় আড়াল করে নির্বাচন করায় বিএনপি সত্যিকার অর্থে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। তাদেরকে এর মাশুল গুণতে হবে।

প্রশ্ন: শুরু থেকেই আওয়ামী লীগের কেন্দ্র থেকে বলা হচ্ছে, ফল বিপর্যয়ের অন্যতম কারণ তৃণমূল থেকে সঠিক তথ্য-উপাত্ত না আসা। তা হলে কেন্দ্রের কাজ কী? কেন্দ্র তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিয়েছে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: তৃণমূল থেকে যে তথ্য-উপাত্ত আসছে, সেটা সব সঠিক না। তবে এটা বলা যাবে না, সব ভুল। কোনটা সঠিক, কোনটা ভুল, সেটা একটু সময় নিয়ে বুঝতে হয়। এই মুহূর্তে যে তথ্য আসবে, দুই সপ্তাহ পর আরও যে তথ্য আসছে, সেটা মিলিয়ে দেখে বিচার-বিশ্লেষণ করে একটা সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যাবে।
সিদ্ধান্ত দেয়া ও নেয়ার ক্ষেত্রে নানা দিক বিবেচনা করে সময় নিয়ে করাটাই ভালো। আমরা সময় নিয়েই সিদ্ধান্তে আসব। কারণ তথ্য-উপাত্ত যেগুলো আসছে, সেখানে কোনো কোনো ক্ষেত্রে কিছুটা ব্যত্যয় হয়েছে। তবে পুরোটাই হয়েছে, এমন নয়। আমরা দেখেছি, অনেক জেলা-উপজেলা থেকেই সঠিক তথ্য পাঠিয়েছে। যেখানে ব্যত্যয় হয়েছে, সেগুলো নিয়ে আমরা আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করব। ইতোমধ্যে যারা ভুল তথ্য পাঠিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আলোচনা হয়েছে। সেটা অবশ্যই সময় মতো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

প্রশ্ন: কী ব্যবস্থা নেয়া হবে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগে গঠনতন্ত্রের বিধি অনুসারে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়। সেটা বহিষ্কার, শোকজ হতে পারে। কাউকে আগামীতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সুযোগ দেয়া হবে না, একটি কিংবা দুটি নির্বাচনে। আর পাপের মাত্রা বেশি হলে তাকে চিরস্থায়ী বহিষ্কার কিংবা প্রাথমিক সদস্যপদ কেড়ে নেয়া যেতে পারে। কাউকে দলের মূল নেতৃত্বে আসার সুযোগ দেয়া থেকে বিরত রাখা হতে পারে।
শাস্তিমূলক ব্যবস্থার অনেকগুলো ধাপ আছে, যার যেটা প্রাপ্য তাকে সেটা দেয়া হবে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভায় আলোচনা করেই তা দেয়া হবে। আমাদের দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা এসব ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

প্রশ্ন: নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে যেসব সংসদ সদস্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কাজ করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তৃণমূল থেকে দাবি উঠেছে। সেই ব্যবস্থা নেয়া কত দূর?
বাহাউদ্দিন নাছিম: কঠিন একটি আপেক্ষিক শব্দ। প্রায়োগিক শব্দ। এই শব্দটি রাজনৈতিকভাবে আমরা বিভিন্নখানে বলি। যে যত টুকু অন্যায় করবে, সে অনুসারে তার শাস্তি হবে। যেটা আমি আগেও বলেছি। কারও জন্য সেটা সহজ, কারও জন্য কঠিন হবে। কারও জন্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হতে পারে। যাদের যা শাস্তি হবে, তা সাংগঠনিক বিধি-বিধানের ভেতরেই হবে। রাজনৈতিক দলে তো আর মৃত্যুদণ্ড দেয়ার সুযোগ নেই।

প্রশ্ন: যারা বিদ্রোহীদের মদদদাতা তাদের কি কোনো তালিকা করা হচ্ছে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: নির্বাচনের আগে যে সিদ্ধান্ত আছে, এদের ব্যাপারে শেষ ধাপের নির্বাচনের ফলাফলের পরেই ব্যবস্থা নেব। এগুলো নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার জায়গা হলো আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটি।

প্রশ্ন: অনেক জায়গায় বেশির ভাগ বিদ্রোহী পাস করেছে। এমন জায়গার এমপি-মন্ত্রীদের প্রতি কেন্দ্রের বার্তা কী থাকবে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: অনেক জায়গায় এমন খবর আছে, এর সত্যতাও আছে। এ সকল ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে নেত্রী আমাদের নির্দেশনা দিয়েছেন। আমাদের একটি সভা হয়েছে, সেখানে তালিকা প্রণয়নের কাজ করা হচ্ছে। তবে তালিকা প্রণয়ন করা আসলে এত সহজ নয়। এসব ক্ষেত্রে দোষারোপের আসলে একটি বিষয় থাকে। অনেক ঢালাও দোষারোপ করা হয়। আমরা আসলে এ ক্ষেত্রে প্রকৃত দোষী কে, এটা যাচাই করছি। সেভাবেই (এর ওপর নির্ভর করে) একটি তালিকা করা হবে। যদি এমন পাওয়া যায় যে, কোনো এমপি-মন্ত্রী এমনটা করেছে, নিশ্চয়ই সে ক্ষেত্রে তার নাম উপস্থাপন করা হবে। সেখানে কে কত ক্ষমতাশালী, এটা বিষয় না। দলের সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে তার কর্মটাই বিবেচ্য। যারা এটা করবেন, সেটা সুষ্ঠুভাবে করেছেন কিনা সেটাও দেখার বিষয়। এ জন্য সাংগঠনিক সম্পাদকরা তথ্য নিচ্ছেন, এটা নেত্রীর কাছে জমা দেবেন।

প্রশ্ন: ইউপি নির্বাচনে যারা দলের বিদ্রোহী, তাদের স্থানীয়ভাবে বহিষ্কার করা হচ্ছে। এটা কি তারা করতে পারেন? কারণ কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুসারে তাদের বহিষ্কারের সুপারিশ করে কেন্দ্রে পাঠানোর কথা। এ বিষয়ে দল কী ভাবছে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: যারা দলের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করবে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে, এটা আগেই ঘোষণা দেয়া হয়েছে। সে অনুসারে স্থানীয়ভাবে উপজেলা ও জেলা থেকে সুপারিশের আলোকেই শোকজ, বহিষ্কার করা হয়। এমনই বলা হয়েছে, জেলা থেকে সেগুলো কেন্দ্রে আসবে। কোনো কোনো জায়গায় পদ্ধতিগতভাবে অন্য ধরন আছে। এটা আমরা জানি। তবে যা কিছু হবে, গঠনতন্ত্র অনুযায়ীই হবে।

প্রশ্ন: জাতীয় নির্বাচনের খুব বেশি দেরি নেই। এমন বাস্তবতায় ইউপি নির্বাচনে দলের এই বিপর্যয় কি জাতীয় পর্যায়ে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করেন?
বাহাউদ্দিন নাছিম: এ যাবৎকালে তো প্রভাব পড়েনি। এ ধরনের প্রভাব কীভাবে উতরানো যায়, যদি পড়ে, সেটা নিয়েও আমরা একই সময় সিদ্ধান্ত নেব। এতে শঙ্কিত হওয়ার কিংবা ভয় পাওয়ার কিছু নেই। আওয়ামী লীগ সব সময় দলীয়, স্থানীয় ও জাতীয় সব ধরনের নির্বাচনে অংশ নিয়ে থাকে। আওয়ামী লীগ অনেক বড় দল, অনেক যোগ্য প্রার্থী এখানে রয়েছে। কিন্তু মনোনয়ন দিতে হয় একজনকে, সকলকে দেয়া যায় না। সে কারণে আমাদের ভেতরে ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ থাকে। কাজের ক্ষেত্রেও তো হোঁচট খেতে হয়, আবার সেটা ঠিক হয়ে যায়।
আওয়ামী লীগের দীর্ঘ ইতিহাসে এগুলো আছে, থাকবে। এগুলো নিয়ে বিচলিত হওয়ার কিছু নেই। যে সময় বাকি আছে, তার আগেই আমরা দলের মধ্যে এগুলো মিটমাট করে নেব। আওয়ামী লীগকে ঠিকঠাক করে আবারও আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেব।

প্রশ্ন: নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতি সংলাপ শুরু করেছেন। সংলাপ প্রক্রিয়াকে স্বাগত জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। আপনারা কী প্রস্তাব রাখবেন?
বাহাউদ্দিন নাছিম: আসুক আমাদের দাওয়াতের চিঠি, আমরা আলোচনা করছি দলের ভেতরে। কী প্রস্তাব দেয়া হবে, সেটা এখনও দলের ভেতরের পর্যায়ে। এগুলো নিয়ে মিডিয়াতে সময় আসলে বলব।

প্রশ্ন: নির্বাচন কমিশন গঠনে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে তো অন্য রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচন কমিশন আইন করার প্রস্তাব রেখেছে। আওয়ামী লীগ কি তার পক্ষে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: নির্বাচন কমিশন আইন আগামী দিনে হবে। এবার তো সময় কম থাকায় সম্ভব হবে না। অদূর ভবিষ্যতে যাতে নির্বাচন কমিশন আইনি কাঠামোর মধ্য দিয়ে তৈরি হয়, সেটা সময়ের দাবি। আমরাও এটা প্রত্যাশা করি।

প্রশ্ন: এত দিন ক্ষমতায় থাকার পরও কেন আওয়ামী লীগ এই আইনটি করল না?
বাহাউদ্দিন নাছিম: ৫০ বছরে আওয়ামী লীগ কত দিন ক্ষমতায় ছিল? এই ৫০ বছরের ২১ বছরে যে জঞ্জাল তৈরি হয়েছে, যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ জর্জরিত হয়েছে, সেই বাংলাদেশে ৫০ বছরে আমরা এখানে উপনীত হয়েছি। আমি বলতে চাই, এটা শুধু আওয়ামী লীগের একার দায়িত্ব না। সকল রাজনৈতিক দলের দায়িত্ব। তবে রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগের দায়িত্ব বেশি। আমরা বলব, যেটা হয়নি, সেটা যাতে হয়। আর যাতে সময় নষ্ট না হয়।

প্রশ্ন: আপনি কি মনে করেন সব দলের অংশগ্রহণে সংলাপ শেষ হবে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: সব দল অংশ নিক, এটা আমরা চাই। সারা দুনিয়াতেই সংলাপ চলে। কিছু মানবো না, শুনব না, যাব না, কিছু করা যাবে না, এ ধরনের মানসিকতায় কোনো দেশ, জাতি এগিয়ে যেতে পারবে না। এ মানসিকতা যারা রাখেন, দেশের স্বার্থে তা বাদ দিতে হবে। সংলাপে এলো সকলেই, নাও এক মত হতে পারেন। তবে কোনো আলাপ-আলোচনাই ব্যর্থ হয় না।
আমরা উন্নত দেশে দেখি, সংলাপের প্রয়োজনীয়তা তারা সকলেই উপলব্ধি করেন, বার বার করেন। যারা চান গণতন্ত্র শক্তিশালী হোক, তারা এ কথা বলেন। সংলাপকে প্রত্যাখান করা, সংলাপ এড়িয়ে চলার মানসিকতা কোনো ভাল মানসিকতা না। এটা জাতির প্রত্যাশিত নয়।
যারা সংলাপকে বিতর্কিত করেছে, তারা সকল কাজকেই প্রশ্নবাণে বিতর্কিত করে। বিরোধিতার জন্য বিরোধিতা নয়, জাতির প্রয়োজনে এগিয়ে আসা প্রয়োজন। বিএনপিসহ কয়েকটি দল নানা কথা বলছেন। তবে আমরা চাই শেষ পর্যন্ত তারা সংলাপে আসুক।

প্রশ্ন: বিএনপিসহ যারা আসবেন না বলছেন, এটা কী কারণে বলে আওয়ামী লীগ মনে করে?
বাহাউদ্দিন নাছিম: মূলত যে কোনো সাংবিধানিক বিষয়কে প্রশ্নবিদ্ধ করাই বিএনপি-জামায়াতের কাজ। তারা পারলে বাংলাদেশকেই প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়। দেশপ্রেমিক নাগরিকরা যেভাবে বাংলাদেশকে দেখে তারা সেভাবে এ দেশকে ভাবতে পারে না।

     More News Of This Category

ফেসবুক