খুলনা তেরখাদায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি প্রার্থী রাজাকার পুত্র, জেলা আ’লীগের তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ ও এলাকায় মানববন্ধন

Spread the love

ইবাংলা নিজস্ব প্রতিনিধিঃখুলনার তেরখাদা উপজেলার শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে শহীদ সরফরাজের হত্যাকারী কেয়ামুদ্দিন রাজাকারের ছেলে মান্নান সরদার অভিভাবক সদস্য পদে নির্বাচন করার জন্য প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছে। আগামী ২ এপ্রিল বিদ্যালয়টিতে ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন। শহীদদের নামের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (যেখানে শহীদ সরফরাজ এর ছবি সংরক্ষিত) শহীদ সরফরাজের হত্যা কারির ছেলে নির্বাচন করাতে জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। রাজাকার পুত্রের এই দুঃসাহসের পিছনে কার কার মদদ রয়েছে তা ক্ষতিয়ে দেখে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার জন্য জেলা আ’লীগ সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছেন।

শহীদদের রক্তের পবিত্রতা রক্ষার্থে অনতিবিলম্বে নির্বাচন হতে তাঁকে সরে যাওয়া উচিত বলে জেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দ মনে করেন।

উপরোক্ত ঘটনায় তেরখাদা মুক্তিযুদ্ধ সন্তান কমান্ডের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের সকল স্বপক্ষের শক্তিদের গড়ে উঠা বিশাল মানববন্ধন ও সকল আন্দোলনের প্রতি খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ পূর্ণসমর্থন ব্যক্ত করেছেন। এঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ ও সাধারণ সম্পাদক এ্যাড সুজিত অধিকারীসহ সকল নেতৃবৃন্দ।

অন্যদিকে, ৭১’ সালের ১৮ মার্চ রাজাকার কেয়াম উদ্দিন সরকার শহীদ সরফরাজকে ধরে নিয়ে যতোবার পাকিন্তান জিন্দাবাদ বলেছিল ততোবার জয় বাংলা বলার কারণে সরফরাজকে গুলি করে হত্যা করে সেই রাজাকার কেয়াম উদ্দিন সরকারের ছেলে মান্নান সরদারের শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রবেশের কোন অধিকার নেই। রাজাকার কেয়াম উদ্দিন সরদারের ছেলে মান্নান সরদার শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রতিবাদে তেরখাদা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড আয়োজনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন। গত (২৬ মার্চ) শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধার সাবেক ডেপুটি কমান্ডার চৌধুরী আবুল খায়ের, বীর মুক্তিযোদ্ধা সরদার আমীর হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওলিয়ার লস্কার, বীর মুক্তিযোদ্ধা নজীর শেখ, বূর মুক্তিযোদ্ধা আবুজার, বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হোসনেয়ারা চম্পা, রবিউল হোসেন, মোঃ আনিছ মোল্যা, ওবায়দুল্লাহ বাবু, আ’লীগ নেতা মোল্যা আজিজুর রহমান, এফএম মনিরুজ্জামান, শাহ্ আলম, মিজানুর রহমান হীরাঙ্গীর, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি মোঃ কায়নাথ ও সাধারন সম্পাদক শেখ শামীম হাসানসহ স্থানীয়রা।

     More News Of This Category

ফেসবুক