রাষ্ট্রীয়ভাবে গণমাধ্যম সপ্তাহ উদযাপনের দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন – বিএমএসএফ

ইবাংলা নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আগামি ১-৭ মে ‘জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিয়ে সপ্তাহটি উদযাপনের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর স্মারকলিপি দেয়া শুরু করেছে। বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম(বিএমএসএফ) বিভিন্ন শাখার পক্ষ থেকে স্মারকলিপি প্রদান শুরু হয়েছে। আগামি ৭ মে পর্যন্ত স্মারকলিপি পাঠানো হবো। স্থানীয় এমপি অথবা জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নিকট এ স্মারকলিপি পাঠানো হচ্ছে।
প্রথম দিনে নীলফামারীসহ বিভিন্ন শাখার উদ্যোগে স্মারকলিপি পাঠানো হয়েছে। জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীনের কাছে স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন স্থানীয় বিএমএসএফ’র পক্ষে দেশটিভির আব্দুল বারী ও এনটিভির নূর আলম।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় রাষ্ট্রীয় ভাবে দেশে শিক্ষা সপ্তাহ, কৃষি সপ্তাহ, স্বাস্থ্য সপ্তাহ, পুষ্টি সপ্তাহ, সমাজ সেবা সপ্তাহ, মৎস্য সপ্তাহ, প্রাণী সপ্তাহ, ফায়ার সার্ভিস সপ্তাহ, পুলিশ সপ্তাহ, আনসার সপ্তাহসহ নানা সপ্তাহ উদযাপন করা হয়। অথচ ৩ মে ‘মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’ বিশ্বের অধিকাংশ দেশ রাষ্ট্রীয় ভাবে উদযাপন করলেও বাংলাদেশে তা কখনোই হয়নি।
বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম বিএমএসএফের পক্ষ থেকে ২০১৭ সাল থেকে ১-৭ মে’ জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহের প্রবর্তন করে উদযাপন করে আসছে। এবছর ৬ষ্ঠবারের মত উদযাপিত হবে। তবে এবছর গণমাধ্যম সপ্তাহ জুড়ে পবিত্র ঈদ উল ফিতর থাকায় সপ্তাহটিতে তেমন কোন আনুষ্ঠানিকতা থাকছেনা।
সপ্তাহ জুড়ে প্রচার প্রচারণা, সদস্য সংগ্রহ,সমাপনী দিনে ভার্চুয়াল আলোচনার মধ্য দিয়ে সপ্তাহটি শেষ হবে।
বিএমএসএফের পক্ষ থেকে বলা হয়, দেশোন্নয়নের চিন্তা করলে আগে গণমাধ্যমের বিকাশ ঘটাতে হবে। গণমাধ্যম অঙ্গনের নানা সমস্যা, সম্ভাবনা সপ্তাহে জুড়ে আলোচনা এবং উত্তরণে করণীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। প্রত্যেকটি কাজের সাথে মিডিয়া জড়িত। এ কারণে গণমাধ্যম সপ্তাহ উদযাপন করা জরুরী।
যদি রাষ্ট্রীয় ভাবে এই সপ্তাহ উদযাপন করা হয় তাহলে আরো বেশি বিকাশ ঘটবে গণমাধ্যমের এমনকি মানুষের চর্চার জায়গাটাও বাড়বে এবং সামাজিক দায়বদ্ধতা বৃদ্ধি পাবে।

     More News Of This Category

ফেসবুক