খুলনা রূপসায় গোয়াল বাড়ির চর নিখোঁজ হওয়ার ২দিন পর স্কুল ছাত্রীর মর দেহ উদ্ধার

কে,এম,কামরুজ্জামান জুয়েল রানা: খুলনা জেলা রুপসা উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের গোয়ালবাড়ি চর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম মন্টু ফকিরের কন্যা, আনন্দনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী মীম খাতুন (১৪) এর মরদেহ উদ্ধার করেছে রূপসা থানা পুলিশ। উক্ত ঘটনার ব্যাপারে পুটিমারি ক্যাম্প ইনচার্জ বাবলা দাস জানান পারিবারিকভাবে জানতে পারে গত শনিবার বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয় উক্ত স্কুল ছাত্রী । পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে থানা পুলিশকে খবর দেয় । অবশেষে আজ ২০ জুন সন্ধ্যার পর পুটিমারি পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত এস,আই বাবলা দাস ও তার সঙ্গীয় ফোর্স গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোয়ালবাড়ি চর এলাকায় জনৈক সুজনের পানের বরজের নিকট ভেটকীর খাল নামক স্থানে একটি গভীর জঙ্গল থেকে মীম খাতুনের লাশ এর সন্ধান পায়।

অবশেষে রুপসা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেন এর উপস্থিতিতে এস আই বাবলা সহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে উক্ত মরদেহ রাত ৮:২০ মিনিট এর সময় উদ্ধার করে রুপসা থানায় প্রেরণ করে। এবং পরবর্তীতে ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়। একাধিক সূত্র জানা যায় গত ৬ মাস পূর্বে মীম খাতুন একই এলাকার হুসাইন (২২) নামে এক যুবকের সাথে প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে পালিয়ে যায় । পরবর্তীতে আবার নিস বাড়িতে বাবা মায়ের কাছে ১৫ দিন পর ফিরে আসে । সেই সূত্র ধরে মীম খাতুন হত্যা হয়েছে কিনা পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে । এদিকে মিম খাতুনের প্রেমিক হোসাইন (২২)ও রবিউল ইসলাম (২৮)পিতা দীন মোহাম্মদ সাং গোলবাড়ি চর। কে পুলিশ আটক করেছে । থানা অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন প্রাথমিক ভাবে জানান , ধারণা করা হচ্ছে পার্শবিক নির্যাতন করে, শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হতে পারে উক্ত স্কুল ছাত্রী মিম কে। এ ঘটনায় আটক হুসাইন ও রবিউল কে জিজ্ঞাসাবাদ করছে থানা পুলিশ। সর্বশেষ রুপসা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সরদার মোঃ মোশারফ হোসেন বলেন হত্যার সাথে সংযুক্ত প্রত্যেককে খুঁজে বের করা পুলিশের দায়িত্ব এবং খুব দ্রুতই এর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে রুপসা থানা ও অন্যান্য প্রশাসনিক কর্মকর্তা।

     More News Of This Category

ফেসবুক